40 হাজার টাকার গেমিং পিসি কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি 2019

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি 2019

কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি
কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি বানানো নিয়ম 2019

 

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা আশা করি সবাই ভালো আছেন। আজকে আমরা আপনাদের মাঝে শেয়ার করব 40 হাজার টাকার গেমিং পিসি কিভাবে বানানো যায়। গেমিং পিসি বানানোর সকল প্রক্রিয়া ও বিবরণ নিচে দেওয়া আছে। তাহলে চলুন শুরু করি আজকের গেমিং পিসি বানানোর কাজ।

 

আমাদের কাছে প্রায় সব সময় রিকুয়েস্ট আসে ৪০ হাজার টাকার গেমিং পিসির কনফিগারেশন করে দেয়ার জন্য।  তাই আমরা নিয়ে আসলাম 40 হাজার টাকা বাজেটে গেমিং পিসি। আমাদের কাছে এই গেমিং পিসির জন্য সব থেকে বেশি রিকুয়েস্ট করেছেন। সিফাত ভাই রাসেল ভাই পিয়ুষ ভাই তাছাড়া অনেকে আমাদের কাছে রিকুয়েস্ট করছেন সবার নাম উল্লেখ করা সম্ভব নয়।

 

কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

 

গেমিং পিসি টি বানাতে আমরা যে সকল কম্পোনেন্ট ব্যবহার করেছি আমার মতে এই দামের সবথেকে ভালো কম্পনেন্ট। আপনারা বাজার ঘুরে এর থেকে ভালো কম্পনেন্ট খুঁজে পেলে ব্যবহার করতে পারেন। এ বাজেটে কম্পনেন্ট সিলেকশন করা অনেক কঠিন ব্যাপার। আমার যদি কম্পনেন্টস সিলেকশন ভুল হয়ে যায় তাহলে কমেন্টে জানাবেন।

 

মাদার্বোর্ড বিবরণ

 

মাদার্বোর্ড হিসেবে আমরা ব্যবহার করছি MSI H310M PRO-VH DDR4 8th Gen Motherboard। এই বাজেটে ভিতরে ভালো মাদারবোর্ড বেছে নেওয়া অনেকটা কষ্টকর। এই মাদারবোর্ডটির ভেতরে আমরা পাচ্ছি H310 চিপসেট। মাদারবোর্ড এর বর্তমান বাংলাদেশ বাজার মূল্য ৬৫০০ টাকার। আপনি চাইলে আপনার মনের মত মাদার্বোর্ড ব্যবহার করতে পারেন।

 

কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

 

প্রসেসর বিবরণ

 

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি বাজেটে ভিতরে সবচেয়ে ভালো প্রসেসর হিসেবে আমরা বেছে নিয়েছি ইন্টেলের ল্যাটেস্ট ৮ম জেনারেশনের কফিলেকের Core I3 8100 সিপিউটি। এই প্রসেসরটি সাথে আমরা পাচ্ছি ৪ টি কোর ও ৪ টি থ্রেড। ফলে এ প্রসেসরটি সাথে আমরা ইন্টেলের আগের জেনারেশনের Core I5 প্রসেসরের মত সমান পারফর্মেন্স পাব। শুধু পার্থক্য হচ্ছে এই প্রসেসর টির সাথে আমরা আলাদা করে কোন বুস্ট স্পীড পাবো না  । এর বেইজ স্পীড হচ্ছে 3.6 GHz এবং ক্যাস মেমোরি পাবেন 6 megabyte।

 

এই প্রসেসর টির মাধ্যমে আমরা বর্তমান জেনারেশনের GTX 1070 পর্যন্ত ভালো কম্প্যাটিবিলিটি পাব এবং ফিউচার জেনারেশনের GTX 1160 বা এ এম ডির RX 670/680 জিপিউ ব্যবহার করতে পারবেন। এই প্রসেসর বেছে নেওয়া হয়েছে আপগ্রেডিবিলিটির কথা চিন্তা করেই ফলে আপনারা ভবিষ্যতে চাইলে আপনার পিসি আপডেট করতে পারবেন। প্রসেসরটি বর্তমান বাংলাদেশের বাজারে মূল্য 7500.00 টাকা।

 

কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

 

র‍্যাম বিবরণ

 

একটি সময় ছিল যখন 4 জিবি র‍্যাম ব্যবহার করে গেম খেলা যেত কিন্তু বর্তমান যুগে যেকোনো ভালো গ্রাফিক্স কোয়ালিটি গেম খেলতে গেলে ৮ জিবি র‍্যাম ছাড়া গেমিং পিসি চিন্তা করা যায় না। এজন্য আমরা ভালো গ্রাফিক্স কোয়ালিটির কথা চিন্তা করে র‍্যাম হিসেবে ব্যবহার করেছি ৮ জিবি র‍্যাম । আমরা র‍্যাম বেছে নিয়েছি হিসেবে  Geil Evo Spear 8 GB DDR4 2400 MHz।

 

বর্তমানে র‍্যামের মার্কেট অনেক গরম তবুও আমরা আমাদের পিসিতে 8 জিবি জিবি র‍্যাম ব্যবহার করেছি। কারণ এতে করে আপনারা স্পিড আরো বেশি পাবেন। আপনি চাইলে ভবিষ্যতে আরও বেশি র‍্যাম ব্যবহার করতে পারবেন। বাংলাদেশের বর্তমান বাজার মূল্য : ৬৭০০ টাকা। 40 হাজার টাকার গেমিং পিসি

 

র‍্যামের আরো কিছু ফিউচার নিচে দেওয়া হল

Highlights

  • Frequency: 2400 MHz
  • Operating voltage: 1.2V
  • Latency Timings- 17-17-17-39

 

হার্ডডিস্ক বিবরণ

 

হার্ডডিক্স হিসেবে আমরা ব্যবহার করছি  Seagate Baraccuda 1TB হার্ডডিস্ক। এর কারণ হলো আপনারা সবাই জানেন ৪ টি গেম ইন্সটল করলেই দেখা যায় ২৫০ জিবি স্টোরেজ গায়েব হয়ে যায়। তাই গেমিং পিসি বিবেচনা করলে মিনিমাম 1 terabyteস্টোরেজ রাখা মাস্ট। তবে আপনারা চাইলে সামান্য টাকা বাড়িয়ে এসএসডি কিনতে পারেন বা এডিশনাল হার্ডডিস্ক যোগ করে নিতে পারেন। গেমিং কম্পিউটার স্পিড কয়েকগুণ বেড়ে যাবে। হার্ডডিক্সটি বাংলাদেশের বর্তমান বাজার মূল্য : ৩৭৫০ টাকা।

 

বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

 

গ্রাফিক্স প্রসেসিং বিবরণ

 

40 হাজার টাকা বাজেটের মধ্যে সবথেকে ভালো জিপিউ হচ্ছে Nvidia GT 1030 2 GB GDDR5। এ বাজেটের মধ্যে  গ্রাফিক্স কার্ডটি সবচেয়ে ভালো। তবে খেয়াল রাখতে হবে আপনার কেনা version যেন GDDR5 মেমোরি ভার্শনের হয়। কারণ ইন্টেল চুপিসারে GT 1030 এর DDR4 version বের করেছে যা GDDR5 version  অপেক্ষা অনেক খারাপ। বাংলাদেশের বর্তমান বাজার মূল্য: ৯২০০ টাকা

 

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি কম বাজেটের

 

পাওয়ার সাপ্লাই বিবরণ

 

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি তে পাওয়ার সাপ্লাই হিসেবে আমরা বেছে নিয়েছি Thermaltake Litepower 350 Watt পিএসইউ। এটি দিয়ে আপনি GTX 1050 ti পর্যন্ত গ্রাফিক্স ব্যবহার করতে পারবেন। তার সাথে থাকছে 2 বছরের ওয়ারেন্টি। অর্থাৎ পিএসইউ এর উপর দুই বছরধরে যত লোড পড়ুক না কেন, আপনার আর কোন চিন্তা করতে হবে না। বর্তমান বাংলাদেশ বাজার মূল্য: ২৫০০ টাকা

 

40 হাজার টাকার গেমিং পিসি কম বাজেটের মধ্যে ভালো গেমিং পিসি

 

কম্পিউটার চ্যাসিস বিবরণ

 

এবার আসা যাক কম্পিউটারের সকল কম্পোনেন্ট গুলো কে এক জায়গায় রেখে কানেক্ট করার জিনিস যার নাম হল চেসিস।বাংলাদেশ সাধারণ কম্পিউটার ইউজারদের কাছে কম্পিউটার চ্যাসিস একটি সাধারণ টিনের বাক্স ছাড়া আর কিছুই নয়। তাই সবকিছু চিন্তা করে আপনাদের জন্য আমাদের রেকমেন্ডেশন থার্মালটেকের Versa H24 কেসিংটি

 

এর সাথে থাকছে ডুয়াল ডিভিডি ড্রাইভ লাগানোর জায়গা, এক্সট্রা ফ্যান লাগানোর সুবিধা সাথে লম্বা বড় গ্রাফিক্স কার্ড লাগানোর সুযোগ তো থাকছেই। এছাড়াও সাথে কেবল ম্যানেজমেন্ট এর জন্য চ্যাসিস ভিতরে আপনারা অনেক জায়গা পাবেন। চ্যাসিস টি বর্তমান বাংলাদেশের বাজার দাম: ৩৫০০ টাকা।

 

আরেকবার দেখে নেয়া যাক কোন কোম্পানির গুলো কি ধরনের দাম

 

  • Processor দাম: Intel 8th Gen I3 8100 – দাম: ১৪,৫০০ টাকা
  • Motherboard – MSI H310 Pro-VH – দাম: ৬৫০০ টাকা
  • Memory – Geil Evo Spear 8 GB DDR4 2400 MHz – দাম: ৬৭০০ টাকা
  • Storage – Seagate Baraccuda 1TB HDD – দাম: ৩৭৫০ টাকা
  • Graphics Card – Nvidia GT 1030 2 GB GDDR5 – দাম: ৯২০০ টাকা
  • Power Supply Unit (PSU) – Thermaltake Litepower 350 Watt – দাম: ২৫০০ টাকা
  • Graphics Card – Nvidia GT 1030 2 GB GDDR5 – দাম: ৯২০০ টাকা
  • চ্যাসিস/কেসিং – Thermaltake Versa H24 – দাম: ৩৫০০ টাকা

 

এই ধরনেরআরো অসংখ্য গেমিং পিসি বানানোর প্রক্রিয়া নিয়ম নিচে দেওয়া হল

 

 

আশা করি বিল্ডের সাজেশন আপনাদের কাছে ভালো লেগেছে। আর ৪০ হাজার টাকার বিল্ড নিয়ে কনফিউশন কিছুটা হলেও দূর হয়েছে। বাজেট বাড়িয়ে যদি 50 হাজার টাকা করতে পারতেন তাহলে কম্পিউটার টা আরো ভালো হতো। এই ওয়েবসাইটে আপনার মূল্যবান সময় দেয়ার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

 

আমার গেম খেলা অনুভূতি আপনাদের মাঝে শেয়ার করা হল।

 

এই কম্পিউটারের সকল প্রকার গেম খেলতে পারবেন কোন সমস্যা ছাড়াই। কিন্তু আপনাকে সকল গেম এইচডি তে খেলতে হবে। ফুল এইচ ডি তে গেম খেলতে পারবেন কিন্তু 35 থেকে 40 fpps পার সেকেন্ড এ খেলতে হবে। আমার গেম খেলা অনুভূতি নিচে দেওয়া হল। যদি কোন ভুল হয়ে যায় তাহলে ছোট ভাই হিসেবে ক্ষমা করে দিবেন ধন্যবাদ 

 

তাহলে প্রথমে শুরু করি এই PUBG গেমটিতে। এই কম্পিউটারে PUBG মোবাইল ও PUBG কম্পিউটার খেলতে পারব সমস্যা। PUBG মোবাইল খেলতে পারে ফুল এইচ ডি আল্টা সেটিং। PUBG কম্পিউটার ভার্সন খেলতে পারবেন ফুল এইচডি। PUBG আমি প্রায় দুই দিনের বেশি গেমটি খেলে দেখছি গেমটি সুন্দর ভাবে চলে কোন সমস্যা ছাড়া। দুই থেকে তিন ঘণ্টা খেলা পরে আমি হালকা হালকা লেগে দেখা পাই সি।

 

GTA 5 গেমটি খেলে দেখেছি গেমটি চলেছে কোন সমস্যা ছাড়াই। GTA5 গেমটি প্রায় ফুল এইচডি তে খেলতে পারবেন। কিন্তু হালকা লেক দেখা যেতে পারে। এই গেমিং কম্পিউটার GTA5 খেলার মজাই আলাদা ছিল। এক কথায় যদি বলি এইচডি তে আপনি খেলতে পারবেন খুব ভালো মতন কোন সমস্যা ছাড়া।

 

গ্রাফিক ডিজাইন কাজ

 

বাংলাদেশি গ্রাফিক ডিজাইন এর কথা চিন্তা করে। আমরা এই কম্পিউটারে সকল প্রকার গ্রাফিক্সের সফটওয়্যার ব্যবহার করে দেখেছি। সফটওয়্যার গুলো কোন সমস্যা ছাড়াই চলছে। এই কম্পিউটারের সাহায্যে আপনি সকল প্রকার গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ করতে পারবেন কোন সমস্যা ছাড়াই

 

ইউটিউব ভিডিও এডিটিং

 

বাংলাদেশের ইউটিউবারদের কথা চিন্তা করে এই কম্পিউটার আমরা অনেকগুলো ভিডিও এডিটিং করে দেখছি। দামের তুলনায় এই কম্পিউটার আপনি অনেক ভালো মানের ভিডিও এডিটিং করতে পারবেন। ফুল এইচডি একটি 10 মিনিটের ভিডিও রেন্ডারিং করতে সময় লাগে প্রায় 20 থেকে 25 মিনিট।

 

আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট করে আমাদের ওয়েবসাইটে আসার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।  আপনি চাইলে আমাদের পোস্টটি আপনার সকল বন্ধুদের মাঝে শেয়ার করতে পারেন। শেয়ার করার সকল সামাজিক মাধ্যম নিচে দেওয়া আছে। আপনার একটি শেয়ার আমাদের পরবর্তী পোস্ট লেখার প্রেরণা যোগায়। তাই ভালো লাগলে আমাদের এই পোস্টটি শেয়ার করুন।

 

পোস্টটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন

 





© All rights reserved © 2019 Gamestipsbd.com
Design & Developed BY GamesTipsBD.com